হ্যাক করা ফেসবুক আইডি ফিরে পাওয়ার সহজ উপায়

বর্তমানে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ হ্যাকিং নিয়ে অনেক সচেতন হলেও একবার হ্যাকারদের কু-নজরে পরলে আর রক্ষা নেই। এখন শুধু বড় বড় সেলিব্রিটিরাই হ্যাকিং এর শিকার হন না, সাধারণ মানুষের ফেসবুক অ্যাকাউন্টও হ্যাক হতে পারে যেকোনো সময়। আজকের আলোচনায় হ্যাক করা ফেসবুক আইডি ফিরে পাওয়ার সহজ উপায় সমূহ নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

প্রতিদিন অসংখ্য ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাকিং এর শিকার হচ্ছে। ফেসবুক হ্যাক হওয়া মানে আমাদের সকল তথ্য হ্যাকারদের হাতে চলে যাওয়া। হ্যাকারদের প্রধান উদ্দেশ্যই হচ্ছে এসব তথ্য নিয়ে ব্ল্যাকমেইল করা ও টাকা হাতিয়ে নেওয়া।

টাকা না দিলে মানহানির ঘটানাও ঘটিয়ে থাকে এরা। এমনকি এখানেও তারা ক্ষান্ত নয়। ভিকটিম সেজে তারা ফ্রেন্ডস ও ফ্যামিলি সদস্যদের কাছ থেকে টাকা ও কনফেডেনশিয়াল তথ্য হাতিয়ে নিতে পারে বা তাদের অ্যাকাউন্টও হ্যাক করে ফেলতে পারে সহজেই।

কাজেই ফেইবুক হ্যাকিং’কে ডোন্ট কেয়ার মনোভাবে দেখার কোনো সুযোগ নেই। ফেসবুক হ্যাক হলে তা তৎক্ষনাৎ উদ্ধারে লেগে যাওয়া উচিত।

কিভাবে বুঝবেন আপনার ফেসবুক আইডিটি হ্যাক করা হয়েছে?

  • আপনি লেখেননি এমন কোনো ম্যাসেজ পাঠানো হলে বা পোস্ট করা হলে।
  • অজানা মানুষদের ফ্রেন্ড রিকুয়েষ্ট পাঠানো হলে।
  • আপনার নাম / ঠিকানা / জন্মদিন পরিবর্তন করা হলে।
  • আপনার ইমেইল এড্রেস বা পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করা হলে।

এছাড়াও হ্যাকার যদি গোপনে আপনার অ্যাকটিভিস এর ওপর নজর রাখতে চায় তাহলে উপরোক্ত কিছুই করবে না। সেক্ষেত্রে আপনার আইডিটি হ্যাক হয়েছে কিনা তা জানতে লগ ইন হিস্ট্রি চেক করতে পারেন।

এর জন্য চলে যেতে হবে Settings & privacy তে, সেখান থেকে password & security অপশনে ক্লিক করলেই Where You’re logged in নামক অপশন দেখতে পাবেন।

আপনার আইডিটিতে কোন কোন ডিভাইস দিয়ে, কোথা থেকে, কখন লগ ইন করা হয়েছে সেসব ডিটেইলস এখানে পেয়ে যাবেন। এখানে অপরিচিত ডিভাইস দেখলে বুঝতে হবে আপনার আইডি অন্য কারো দখলেও আছে।

উপরোক্ত বিষয়গুলোর সাথে যদি মিল পান তাহলে ধরে নিতে হবে আপনার ফেসবুক আইডিটি হ্যাক করা হয়েছে।

হ্যাকড ফেসবুক আইডি ফিরে পেতে নিম্নোক্ত পদক্ষেপগুলো অনুসরণ করুন-


ফেসবুক একাউন্টে একসেস থাকলে করনীয়

ফেইসবুক একাউন্ট হ্যাক হওয়ার উল্লিখিত লক্ষনগুলো দেখার পরও যদি আপনি ফেইসবুকে ঢুকতে পারেন তাহলে ধরে নিতে হবে হ্যাকার ফেইসবুক পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করেনি বা আপনার পাসওয়ার্ডটি তুলনামূলক সহজ ছিলো যার কারনে কেউ অনুমান করে ঢুকেছে।

পরিস্থিতি যা-ই হোক না কেনো আপনার যদি সন্দেহ হয় একাউন্ট হ্যাক হয়েছে, তৎক্ষনাৎ পদক্ষেপ নেওয়াই শ্রেয়। পাসওয়ার্ড চেঞ্জ করার জন্য চলে যান Settings & privacy তে, গিয়ে Change password এ ক্লিক করে পাসওয়ার্ড চেঞ্জ করে নিন।

পাসওয়ার্ড যেন অবশ্যই ছোট বড় অক্ষর, সংখ্যা, চিহ্ন ইত্যাদির সংমিশ্রণে একটি স্ট্রং পাসওয়ার্ড হয় সেদিকে খেয়াল রাখবেন। পাসওয়ার্ড চেঞ্জ হওয়ার পর Review other devices এ ক্লিক করার পর Log out of all sessions এ ক্লিক করবেন। এতে করে অন্য ডিভাইসে আপনার একাউন্ট লগড ইন থাকলে সেটা সরিয়ে দেওয়া হবে।

একাউন্টে একসেস না থাকলে করনীয়

আপনার ফেইসবুক পাসওয়ার্ডটি যদি কাজ না করে ও আপনার যদি সন্দেহ হয় একাউন্টটি হ্যাক হয়েছে তাহলে পাসওয়ার্ডটি রিকভার করতে পারেন। এজন্য ফেইসবুকের লগ-ইন পেজ এ চলে যেতে হবে।

সচারাচর যেভাবে লগ করেন সেভাবে আপনার একাউন্টের সাথে সংযুক্ত ইমেইল বা ফোন নাম্বার দিন। এবার নিচে দেখুন Forgot Password নামক একটি অপশন আছে সেখানে ক্লিক করুন।

ফোন নাম্বার বা ইমেইল দিয়ে Find your account এ ক্লিক করুন। এরপর আপনার একাউন্টটি সিলেক্ট করে Get code এ ক্লিক করুন। এখন ইমেইল বা ফোন নাম্বার দিয়ে কনফার্ম করুন, এরপর Log me out from other devices এ ক্লিক করুন। এতে করে অন্য সব ডিভাইস থেকে একাউন্টটি সরিয়ে দেওয়া হবে। এবার নতুন করে একটা স্ট্রং পাসওয়ার্ড সেট করুন।

এই পদ্ধতিটি কাজ না করার সম্ভাবনা অনেক বেশি, তবুও চেষ্টা করে দেখতে পারেন। যদি কাজ না হয় তাহলে ধরে নিতে হবে, হ্যাকার আপনার ইমেইল ও ফোন নাম্বার চেঞ্জ করে ফেলেছে।

সেক্ষেত্রে নিচের পদক্ষেপগুলো অনুসরণ করুন-

যে ইমেইল দিয়ে আপনার আইডি খুলেছিলেন বা যে ইমেইল একাউন্টটি আপনার আইডিতে যুক্ত করেছিলেন সেটি ভালোভাবে চেক করুন। হোম স্ক্রিনে খুজে না পেলে স্প্যাম ম্যাসেজ চেক করুন। কারন ইমেইল চেঞ্জ করা হলে সবসময় আগের ইমেইলে ফেইসবুক থেকে একটি ম্যাসেজ যায়।

ফেইসবুক থেকে প্রেরিত ম্যাসেজটি খুজে পেলে সেখানে দেখতে পাবেন “Secure your account” সেখানে ক্লিক করলেই আপনার আইডিটি উদ্ধার করতে পারবেন।

এই পদ্ধতিতেও কাজ না হলে, নিচের পদ্ধতিটি অনুসরণ করুন-

www.facebook.com/hacked এই লিংকে ক্লিক করুন বা ব্রাউজারে এটি লিখে সার্চ দিন।এরপর সেখানে থাকা “My account is compromised” লেখাটিতে ক্লিক করুন।

এটিতে ক্লিক করার পর Find your account নামক একটি অপশন আসবে। সেখানে আপনি ইমেইল, ফোন নাম্বার, ইউজার নেইম ও ফুল নেইম ইত্যাদি দিয়ে সার্চ করে আপনার ফেইসবুক আইডিটি খুঁজে বের করতে পারবেন।

আইডি খুঁজে সেখানে ক্লিক করার পর কারেন্ট অথবা ওল্ড পাসওয়ার্ড চাইবে। শেষ যেই পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনার আইডিতে ঢুকতে পেরেছিলেন এখানে সতর্কতার সাথে সেটি দিন।

এরপর, কতোগুলো কারণ দেওয়া হবে। সেখান থেকে “I’ve found a post, message or event that i didn’t create” ও “someone else got into my account without my permission” এই দুটি অপশন সিলেক্ট করে continue তে ক্লিক করুন।

এরপর Get started এ ক্লিক করুন। সেখানে একাউন্ট সিকিউর করার কিছু অপশন পাবেন। continue তে ক্লিক করার পর পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করতে বলবে। সেখানে অবশ্যই একটি নতুন পাসওয়ার্ড দিবেন যেটা আর কোথাও ব্যবহার করেননি।

পাসওয়ার্ড সেট করার সময় খেয়াল রাখবেন,পাসওয়ার্ডটি যাতে ছোট হাতের অক্ষর, বড় হাতের অক্ষর, সংখ্যা ও চিহ্নের সমন্বয় একটি স্ট্রং পাসওয়ার্ড হয়। এরপর নতুন পাসওয়ার্ডটি পুনরায় টাইপ করে continue তে ক্লিক করবেন। পাসওয়ার্ড সেট করা হয়ে গেলে কিছু ইমেইল, পেজ, ও কমেন্ট দেখানো হবে যা রিসেন্টলি আপনার আইডি থেকে করা হয়েছে।

আপনার যুক্ত করা ইমেইল,পেজ বা কমেন্ট ব্যতীত অন্য কোনো ইমেইল,পেজ বা কমেন্ট দেখতে পেলে সেগুলো সিলেক্ট করে দিন। যদি সেগুলো আপনার হয়ে থাকে ও আপনি করে থাকেন তাহলে স্কিপ করুন।

এগুলো ছাড়াও ফেইসবুক আপনাকে পোস্ট, সেটিংস ও অন্যান্য বিষয় দেখাতে পারে, সেগুলো যদি আপনি না করে থাকেন তাহলে সিলেক্ট করে সরিয়ে ফেলুন। সব হয়ে গেলে Go to news feed এ ক্লিক করুন। ব্যাস হয়ে গেলো আপনার হ্যাক হওয়া ফেইসবুক আইডিটি উদ্ধার করা।

উপরোক্ত সবগুলো পদ্ধতি প্রয়োগ করেও যদি আপনার হ্যাক হওয়া ফেইসবুক আইডিটি ফিরে না পান। তাহলে বুঝতে হবে হ্যাকার আপনার আইডিটির বারোটা বাজিয়ে ফেলেছে। এমতাবস্থায় নতুন আইডি খোলাই শ্রেয়।

এছাড়াও আপনি চাইলে আপনার হ্যাক হওয়া আইডিটি রিপোর্ট করে বন্ধ করে দিতে পারেন। রিপোর্ট করার জন্য অন্য আইডি দিয়ে আপনার হ্যাক হওয়া আইডিটি খুজে বের করতে হবে।

এরপর আইডির ডান পাশে তিনটি ডট চিহ্ন দেখতে পাবেন। সেখানে ক্লিক করলে Find support or report নামক অপশন দেখতে পাবেন। সেখানে ক্লিক করলে অনেকগুলো অপশন আসবে। সেখান থেকে I want to help সিলেক্ট করে hacked সিলেক্ট করতে হবে। এরপর done এ ক্লিক করলেই রিপোর্ট করা হয়ে যাবে।

এই পদ্ধতিতে ৩০ থেকে ৫০ জন একসাথে রিপোর্ট করলেই হ্যাক হওয়া আইডিটি ১ দিন বা সর্বোচ্চ ৩-৫ দিনের মধ্যে বন্ধ করে দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে যতো বেশি রিপোর্ট করা যায় ততো দ্রুত কাজ হয়।

আরও পড়ুন-